মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র (ইউআইএসসি)

অবাধ তথ্য প্রবাহ জনগণের ক্ষমতায়নের অন্যতম পূর্বশর্ত। বিশেষ করে অনগ্রসর জনগণের মাঝে তথ্য প্রবাহ নিশ্চিত করার মাধ্যমে তাদের জীবনযাত্রার মানে ইতিবাচক পরিবর্তন আনয়ন করা সম্ভব। তৃণমূল পযার্য়ে ব্যাপক জনগোষ্ঠীর মাঝে তথ্যসেবা পৌঁছে দিয়ে জনগণের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করার জন্য স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের সম্পৃক্ততা অপরিহায। এ লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগ ইউনিয়ন পযার্য়ে পযার্য়ক্রমে ‘ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র( ইউআইএসসি)’  স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। ইউআইএসসি হচ্ছে এমন একটি অত্যাধুনিক তথ্য সেন্টার(টেলিসেন্টার)-যার উদ্দেশ্য হলো তৃণমূল মানুষের দোরগোড়ায় তথ্য সেবা নিশ্চিত করা।

 

ক) ইউআইএসসিসমূহঃ

·         ইউনিয়ন পরিষদভিত্তিক একটি অত্যাধুনিক তথ্যকেন্দ্র : এ তথ্যকেন্দ্র থেকে স্থানীয় জনগণ সার্বিক জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে অবাধে উন্নত তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে জীবিকাভিত্তিক তথ্য ও বিভিন্ন সেবা সংগ্রহ করতে পারবে;

·         পাবলিক সার্ভিস ডেলিভারি চ্যানেল : যার মাধ্যমে স্থানীয় জনগোষ্ঠী সরকারি সকল তথ্য ও সেবা দ্রুত পেতে সক্ষম হবে;

·         ওয়ান স্টপ সপ : যেখানে সরকারি-বেসরকারি সকল তথ্যসেবা পাবার একটি স্থানীয় জ্ঞানভান্ডার। এক কথায় ইউআইএসসি হলো সরকারি-বেসরকারি –জনগণের অংশীদারিত্বমূলক একটি প্রতিষ্ঠান। উলেখ্য, এলজিএসপি ফান্ড এবং ১% রাজস্ব আয় থেকে ক্রয় করে উদ্যোক্তাদের সরবরাহ করতে হবে।

 

খ)ইউআইএসসি থেকে প্রদানকৃত তথ্য সেবা

·         অনলাইন : ইউআইএসসিতে ইন্টারনেটের সংযোগ থাকায় ইউনিয়নের যে কোন ব্যক্তি সারা পৃথিবীর সাথে যোগাযোগ স্থাপনসহ দেশি ও বিদেশি বিভিন্ন ওয়েব সাইট থেকে প্রয়োজন অনুযায়ী যে কোন তথ্য অনলাইনের মাধ্যমে খুঁজে পেতে সক্ষম হবে। এ ছাড়াও সুলভ মূল্যে পাওয়া যাবে-

১) ই-মেইল আদান-প্রদান, ইন্টারনেট ব্রাউজিং করা, ভিডিও কনফারেন্সিং, ভিডিও প্রদর্শনী, ফটোতোলা;

২) স্কুল,কলেজ,মাদ্রাসার এমপিওভুক্তির তথ্য, এসএসসি/এইচএসসি বিভিন্ন পরীক্ষার ফলাফল;

৩) সরকারের বিভিন্ন বিভাগের তালিকা ও কর্মপরিধি, পরিসংখ্যান ব্যুরো এবং বিভিন্ন জরিপ;

৪) প্রাকৃতিক দুযোর্গের ফলে সৃষ্ট ক্ষয়ক্ষতির বিবরণ এবং বিভিন্ন কর্মসংস্থান বিষয়ক তথ্য;

৫) কৃষি,স্বাস্থ্য, শিক্ষা, আইন ও মানবাধিকার, কর্মসংস্থান, বাজার, মাটি পরীক্ষা, সার, কীটনাশক, মাছ চাষ, ভূমি রেজিস্ট্রেশন প্রভৃতি বিষয়ে পরামর্শ।

 

·         অফলাইন : এ তথ্যভান্ডারে থাকবে-

১) বিভিন্ন সরকারি ফরম, সরকারি সার্কুলার, বিধি, বিজ্ঞপ্তি এবং বিভিন্ন ডকুমেন্ট;

২) জন্ম নিবন্ধন, ভোটার তালিকা হালনাগাদকরণ,নাগরিকত্ব সার্টিফিকেট;

৩) কম্পিউটার কম্পোজ করা, স্ক্যানিং করা, প্রিন্টিং করা, লেমিনেটিং করা, মোবাইল ফোন ব্যবহার করা;

৪) মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর ভাড়া নেয়া, কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, বিভিন্ন দক্ষতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ইত্যাদি;

৫) ইউনিয়ন পরিষদের সেবাসমূহ এবং জনগণের মৌলিক অধিকার সম্পর্কিত তথ্য।

 

·         ইউআইএসসি ব্লগ : ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্রর সচ্ছতা  ও জবাবদিহীতার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ইন্টারনেট ভিত্তিক সাইট হলো ইউআইএসসি ব্লগ। এর মাধ্যমে তৃণমূল পযায় থেকে উদ্দ্যেক্তাগণ তাদের বর্তমান কাযর্ক্রম সেবা, সমস্যা, চাহিদা ও সম্ভবনা কথা আলোচনা করে থাকেন।এ ব্লগের সাথে যুক্ত রয়েছেন প্রধান মন্ত্রির কাযালয়ের বিভিন্ন পযার্য়ের কর্মকর্তা, মন্ত্রণালয়, বিভিন্ন কাযার্লয়, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, ইউনিয়ন সচিব ইত্যামি। ব্লগে উথাপিত সমস্যাগুলো পারস্পরিক আলোচনার মাধ্যমে সল্প সময়ের মধ্যে সমাধান হয়ে থাকে। ফলে এ ব্লগের মাধ্যমে সচ্ছতা ও জবাবদিহীতা কাযকর রয়েছে।

·         মোবাইল ব্যাংকিং : বর্তমান ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্রগুলোতে চালু করা হয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং। যার ম্যাধ্যমে গ্রামীণ সাধারণ জনগণ তার সঞ্চয়ের অর্থ খুব সহজেই ব্যাংকে জমা রাখতে পারে এবং উত্তোলন করতে পারে। এ ব্যাপারে ট্রাস্ট, ব্রাক, ডাচ বাংলা ইত্যাদি ব্যাংক সগযোগিতা করছে।

·         মোবাইলে স্বাস্থ্য সেবা : গ্রামীণ সাধারণ জনগণ ইউআইএসসিত মোবাইল ফোনের মাধ্যমে স্বাস্থ্য সেবা পেতে শুরু করেছে। উপজেলা পযার্য়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তারের কাছে একটি জরুরি মোবাইল ফোন নম্বর রয়েছে যা চব্বিশ ঘন্টা খোলা থাকে এবং সেবা প্রদান করে থাকে। সাধারণ জনগণ ইউআইএসসিতে এসে নম্বর সংগ্রহ করে সরাসরি ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত পরামর্শ গ্রহণ করছে। এতে অর্থ ও সময় সাশ্রয় হচ্ছে। এছাড়া ইউআইএসসি থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করে স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করে থাকে।

 

গ) ইউআইএসসি ব্যবস্থাপনা

    ইউআইএসসি পরিচালনার জন্য ৭-৯ সদস্যের ‘ইউআইএসসি পরিচালনা কমিটি’ থাকবে। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদাধিকার বলে এ কমিটির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এ কমিটির মেয়াদ হবে দু’বছর। ইউআইএসসি’র সাধারণ কমিটির সদস্যদের সরাসরি ভোটে ইউআইএসসি পরিচালনা কমিটি গঠিত হবে। তবে একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি নির্বাচিত হওয়ার পূর্বে প্রথম বছর সর্বোচ্চ এক বছরের জন্য ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য্যগণ এলাকাবাসীদের মধ্যে সৎ, উদ্যোগী ও দক্ষ লোকের সমন্বয়ে একটি এড-হক কমিটি গঠন করবে। কমিটির মোট সদস্যেল কমপক্ষে এক তৃতীয়াংশ সদস্য হবেন নারী। কমিটিতে বিভিন্ন পেশার মানুষের প্রতিনিধিত্ব থাকবে। পরিষদের সচিব কমিটির দায়িত্ব পালনে প্রয়োজনীয় প্রাতিষ্ঠানিক ও অন্যান্য সহযোগিতা প্রদান করবেন।

 

ঘ) ইউআইএসসি সাধারণ কমিটি’র গঠন হবে নিম্নরূপ-

১) ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিগণ (পদাধিকার বলে)

২) ইউনিয়ন পযার্য়ে কর্মরত সকল সরকারি কর্মকর্তা/ কর্মচারী (পদাধিকার বলে)

৩) ইউনিয়ন পরিষদের সকল সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ(পদাধিকার বলে)

৪) সরকার অনুমোদিত পেশাজীবী ও সামাজিক সংগঠনের প্রধানগণ ( পদাধিকার বলে)

৫)ইউআইএসসি পরিচালনায় উৎসাহী এবং এলাকায় গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিদের মধ্যে থেকে ওয়ার্ড প্রতি কমপক্ষে ৬(ছয়) জন ব্যক্তি স্থানীয় জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে কমিটির সাধারণ সদস্য হবেন। ওয়ার্ড সদস্যগণ, ওয়ার্ডের শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের (মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোডা ইত্যাদি) প্রধানগণ আলোচনা সাপেক্ষে ওয়ার্ড প্রতিনিধি মনোনয়ন করবেন।

 

ঙ) ইউআইএসসি কাযনির্বাহী কমিটির গঠন হবে নিম্নরূপ-

১) সভাপতি-                                       ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান (পদাধিকার বলে)

২) সহ-সভাপতি-                                  সাধারণ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত

৩) সাধারণ সম্পাদক-                            সাধারণ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত

৪) অর্থ সম্পাদক-                                  সাধারণ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত

৫) সামাজিক উদ্বুদ্ধকরণ ও প্রচার সম্পাদক-   সাধারণ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত

৬) দপ্তর সম্পাদক-                                সাধারণ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত

৭) নির্বাহী সদস্য (তিন জন)-                     সাধারণ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত

 

চ) ব্যবস্থাপনা কমিটির দায়িত্ব

·         স্থানীয় উদ্দ্যোক্তা নির্বাচন;

·         ইউআইএসসির প্রয়োজনীয় উপকরণ ক্রয় ও সংগ্রহ;

·         ইউআইএসসির উপকরণ স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজে উদ্দ্যোক্তাকে প্রশাসনিক ও অন্যান্য সহায়তা প্রদান করা;

·         এলাকার জনগণের মাঝে তথ্যসেবা গ্রহণে আগ্রহ সৃষ্টির জন্য উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচি বাস্তবায়নে সার্বিক সহায়তা প্রদান;

·         ইউআইএসসির আয়-ব্যয়ের হিসাব এবং রির্পোটিং যথাযথভাবে সম্পন্ন করায় উদ্দ্যোক্তাকে সার্বি সহায়তা করা;

·         প্রতি মাসে কমপক্ষে একটি সভা আয়োজন করে ইউআইএসসির কাযর্ক্রম পযালোচনা করা;

·         দ্বিবার্ষিক সাধারণ সভা আয়োজন করে ইউআইএসসি’র আয়-ব্যয়ের হিসাব ও পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন সাধারণ সভায় উপস্থাপন ও অনুমোদন করা।

 

ইউআইএসসিকে সহায়তা প্রদানে ইউনিয়ন পরিষদের ভূমিকা

 ইউনিয়ন পরিষদ হচ্ছে ইউআইএসসি’র মূল উদ্দ্যেক্তা। ইউনিয়ন পরিষদ ইউআইএসসি কাযর্ক্রমের সার্বিক তত্ত্বাবধান, পরিচালনা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করবে। তবে ইউনিয়ন পরিষদের সুনির্দিষ্ট দায়িত্বের মধ্যে রয়েছে-

·         উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে আলোচনা করে সঠিক উদ্দ্যেক্তা নির্বাচন করা;

·         কেন্দ্র স্থাপনের জন্য উপযুক্ত কক্ষ বরাদ্দ প্রদান;

·         উদ্দ্যেক্তার অংশের বাইরে প্রয়োজনীয় উপকরণ ক্রয় ও সরবরাহ করা;

·         কেন্দ্র স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র ক্রয় ও সরবরাহ করা;

·         বিদ্যুৎ সংযোগ, পানির সংযোগ ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় প্রাতিষ্ঠানিক সুবিধা প্রদান;

·         প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করা;

·         ইউআইএসসি পরিচালনা কমিটি’র কাযর্ক্রম বাস্তবায়নের সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদান;

·         ইউআইএসসি’র উন্নয়ন স্থানীয় ও জাতীয় পযার্য়ে আর্থিক ও অবকাঠামোগত সহায়তা যোগান দিতে ইউনিয়ন পরিষদের ভূমিকা রাখা;

·         ইউআইএসসি’র কাজের পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন করা;

·         পাক্ষিক প্রতিবেদন প্রণয়ন।

ছবি



Share with :

Facebook Twitter